TitBut


তুতুকে অনেকদিন দেখি...
 
Notifications
Clear all

তুতুকে অনেকদিন দেখিনা

 Anonymous
(@Anonymous)
Guest

Quote
Posted : 11/05/2011 8:12 pm
 Anonymous
(@Anonymous)
Guest

তুতুকে অনেকদিন দেখি না। অনেকদিন ওর বাসায় যাওয়া হয় না। ও শেষবার এসেছে ছ সাত মাস আগে। তারপর আর দেখা নেই। ওকে দেখতে হলে ওর শ্বশুরবাড়ীতে যেতে হবে। সম্পর্কে ভাগ্নী, আমাকে মামা ডাকলেও আসলে তো আমি ওকে অন্য চোখে দেখি। সেটা শুধু তুতু আর আমিই জানি। ভালোবাসি কথাটা কখনো বলতে পারিনি, কিন্তু দুজনেই বুঝি কতটা ভালোবাসি। তুতু অপূর্ব সুন্দরী। আমার চোখে সবচেয়ে মাধুর্যময় মেয়ে। ভাগ্নী পর্যায়ের না হলে আমি ওকে বিয়ে করে ফেলতাম। কিন্তু ওর মা আমার কাজিন। কি করে বলি। যদি বিদেশ বিভুইয়ে থাকতাম, তাহলে আমি ওকে নিয়ে সংসার পাততাম। আমি চিরকাল খুজে এসেছি ওর মতো একটা মেয়ে। এমন কোমল স্বভাবের মেয়ে আর দেখিনি। ছোটবেলা থেকে ওকে আদর করতাম। শিশুসুলভ নিষ্পাপ আদর বড় হবার পর আস্তে আস্তে ভালোবাসায় রূপান্তরিত হচ্ছিল টের পাচ্ছিলাম। ওকে দেখা মাত্র ওর মাথার চুল টেনে আদর করতাম সব সময়। বড় হবার পর ইচ্ছে করতো চুল টেনে মাথাটা বুকে জড়িয়ে ধরি। তুতুর চোখেও সেই কামনা দেখতাম। কিন্তু সাহস হতো না। তুতু যে আমার কেমন ভক্ত ছিল আমি সেটা আমার এক দুঃসময়ে জেনেছি।
সেই সময়ে তুতু আমার জন্য যা করেছে একমাত্র বউ ছাড়া আর কেউ তেমন করে না। তুতুকে দেখে একাধারে আমি প্রেমের আগুনে জ্বলতাম, আবার কামের আগুনেও। তুতু যখন আমাদের বাসায় এক নাগাড়ে কয়েক মাস ছিল তখন তুতু আর আমি খুব কাছাকাছি চলে আসি। তুতু জানতো আমি কখন কি খাই, কি চাই। তুতুর শরীরটা কামনার আধার হয়ে ওঠে। তুতুর মুখ, ঠোট, চোখ, চিবুক, গ্রীবা, চুল অপরূপ সুন্দর। তুতুর স্তন দুটো অনুপম সৌন্দর্যে ভরপুর। আমার কাছে সংকোচ করতো না বলে তেমন রেখে ঢেকে চলতো না। এখনো মনে পড়ে তুতু যখন হাটতো তখন দারুন ছন্দে লাফাতো ওর নরম স্তন দুটি। আমি প্রান ভরে দেখতাম। ঘরে তুতু ঢিলে ঢালা লিনেনের একটা কামিজ পড়তো। ব্রা পরতো না। ফলে ঢিলে নরম লিনেনের কামিজ ভেদ করে স্তনের স্পষ্ট রূপ আমার চোখের সামনে ভেসে উঠতো। আমি পুরো স্তনের সাইজ উঠা নামা সম্বন্ধে জেনে গেলাম। স্তনদুটো খাড়া ছিল না। একটু ঝুলে গেছে, কিন্তু ততটাই ঝুলেছে যতটা ঝুললে একটা কিশোরীকে নারী বলা যায়। ব্রা না পরার কারনে তুতুর স্তনের পাশগুলো বগলের দিকে একটু ফুলে বেরিয়ে থাকে, সেটা কি সুন্দর না দেখলে বোঝানো যাবে না। আমি সেই সব দিনে বহুবার তুতুকে নিয়ে কল্পনায় ভেসেছি। তুতুর স্তনগুলো কল্পনা করে বহুরাত বিছানা ভিজিয়েছি। আমি ওর স্তন দুটো চুষতে চাইতাম। আর কিছু না হোক শুধু স্তন দুটো নিলে তেমন সমস্যা হতো না। কিন্তু সাহস করতে পারিনি। তুতুও নিজ থেকে এগিয়ে আসেনি। তুতু তখন কিশোরীত্ব ছেড়ে তরুনীতে পরিনত হচ্ছে। ওর তখন ১৯ বছর বয়স। আমি জানি সেই সময়গুলোতো আমি যদি তুতুকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরতাম, ওর ঘাড় থেকে চুমু খেয়ে ঠোটে পৌছাতাম তুতু বিন্দুমাত্র বিরক্ত হতো না। আমি যদি তুতুর নরোম স্তন দুটোকে দুহাতে পিষ্ট করতে করতে ওকে বিছানায় চেপে ধরতাম উদগ্র কামনায়, ও খুব নিরানন্দ হতো না। তবু আমি তুতুকে ধরিনি। কেবল কামনার আগুনে জ্বলেছি।
গতকাল তুতুর একটা ভিডিও দেখতে দেখতে ওর কথা মনে পড়ছে খুব। ভিডিওটা একটা অনুষ্ঠানের যেখানে আমি ও তুতু দুজনেই ছিলাম। তুতু যখন আমার পাশে বসেছে আমি ওর চেহারার মধ্যে কেমন যেন কামনার আগুন দেখেছি। তুতুর চেহারাটা ক্যামেরায় খুব সুন্দর দেখাচ্ছিল। ক্যামেরম্যান আমাকে আর তুতুকে বারবার এমনভাবে ফোকাস করছিল যেন আমার দুজন প্রেমিকপ্রেমিকা। আমার খুব ভালো লেগেছে ব্যাপারটা। ক্যামেরাম্যান কি আমাদের চোখে তেমন কিছু দেখেছিল। আমি আমাদের ভালোবাসার ভিডিও সংস্করন দেখে খুব আনন্দিত হলাম। আমি যদি এখনো তুতুকে পাই বুকে জড়িয়ে নিতে দ্বিধা করবো না। আমি তুতুকে চিরকাল ভালোবাসবো। তুতুর সাথে যখন ওর স্বামী খারাপ ব্যাবহার করে, তুতু ওর অন্য আপন মানুষদের আগে আমাকে ফোন দেয়। আমার ইচ্ছে করে ওকে গিয়ে নিয়ে আসি। আমার কাছাকাছি।

ReplyQuote
Posted : 11/05/2011 8:13 pm
CONTACT US | TAGS | SITEMAP | RECENT POSTS | celebrity pics